‘মেহেদী সম্রাট’ এর গল্পাণু

বেশ্যা ‘র জবানবন্দি


DD 2 2 2 1

নাম ফুলবানু । সে এক চাঁদহীন আমাবশ্যার রাতে আঁধারের কাছে জবানবন্দি দিচ্ছিলো । সে আঁধারেই মিশে ছিলাম আমি । সেখান থেকেই তুলে এনেছি ফুলবানু’র জবানবন্দির খন্ডাংশ । যা ছিলো এরকম…
“শিমুলপুরের ফুলি থেকে ঝলমলে ঢাকার ফুলবানু হয়ে ওঠা এই আমি । কোন একদিন বরগা চাষি বাবা আমার বিয়ের খরচ যোগাতে জোতদারের কাছে গেল । ভালো মানুষ জোতদার দিয়েও ছিল কিছু টাকা বাবাকে । তারপর..! বিয়ের আগেরদিন পড়ন্ত বিকেলে জোতদার চাচা’র পাশবিক ধর্ষনে আমার সতিচ্ছেদ হলো..! পিতার বয়েসী জোতদারের কাছে কুমারিত্ব বিসর্জন, সে যে কি ভয়ানক যন্ত্রনা….!!
এরপরও কি করে বসি বিয়ের পিঁড়িতে..?? পালালাম । সে রাতেই। সোজা স্টেশন ঘাটের দিকে । ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে মরার সেটাই ছিলো মোক্ষম সুযোগ । কিন্তু পারিনি   । ঐ যে স্টেশন মাস্টার..!! খুব ভালো মানুষ । মরতে দিলোনা আমাকে। পিতৃস্নেহে টেনে নিলো বুকে । নিজের মেয়ে বানালো আমাকে । নিজের বাড়িতে তার মেয়েদের সাথেই থাকতে দিলো । হঠাৎ একদিন মাঝরাতে সে আমার বিছানায় এলো..!! দানবের মতো চেপে ধরলো আমায় । নিমিশেই বিবস্ত্র হলাম। সারারাত ধরে তার পুরুষাঙ্গ আমায় থেঁতলে দিলো । যৌনাঙ্গে রক্তক্ষরণ হলো ।
পরদিন সকালে আমাকে এই ঢাকার ট্রেনে তুলে দিলো । কিছু টাকাও গুঁজে দিয়েছিলো আমার হাতের মুঠোয়…!! হয়তো আমার অশ্রুর মূল্য বাবদ…!! শহরে এলাম। বহু হাত ঘুরে ঘুরে যৌনকর্মে পারদর্শী হয়ে উঠলাম যেন…!! এক পরিপূর্ণ বেশ্যা হয়ে উঠলাম আমি। তার পর ঠাঁই হলো এক পতিতালয়ে। 
এখন আমি ফুলবানু । অনেক খদ্দের আমার। ম্যালা টাকা রোজগার । খোঁজ নিয়ে জানলাম, বাপটা গলায় দঁড়ি দিছে। বিয়ের রাতে পালাইছি বলে । শুনছি মায় আমারে মেয়ে বলে শিকার করে না..! তাতে কি হইছে…? এখন আমার ম্যালা টাকা..!!
তয় আজকে আবার পালাইছি। এই আমাবশ্যার রাতে । ঘুটঘুটে অন্ধকারে । বেশ্যাপাড়া থেকে অনেক দূরে। ভদ্রতার মুখোশের আড়ালে লুকায়িত বর্বর সমাজ থেকেও অনেক দূরে । আজকে বাপের কাছে যাবো । গিয়ে বাপরে বলবো, তোমার আর যাইতে হইবো না জোতদারের কাছে । এখন আমার অনেক টাকা……”
এরপর আমি আর কিছু শুনিনি ফুলবানুর কন্ঠে । শুনেছি একটা অট্টহাসির শব্দ। একটা আর্তচিৎকার একটা পতনের আওয়াজ । মাংসপিন্ড থেঁতলে যাবার গোঙানি……….!!
এরপর সব নিস্তব্দ । আর কিছুই শুনিনি আমি ।
আপনার সোনামনির জন্য নাম খুজে পেতে সহয়তা করতে আমরা আছি আপনার পাশে। এখানে আমরা বিভিন্ন ক্যাটাহরীতে কয়েক হাজার নাম ও তার অর্থসহ সংগ্রহ করেছি। ভবিষ্যতে ভিজিটরদের চাহিদার কথা মাথায় রেখে নিত্যনতুন কিছু ফিচার যুক্ত করা হবে। এছাড়া প্রতিটি নামের শুদ্ধ বাংলা ও ইংরেজি বানান সংযুক্ত করার কাজ চলছে। প্রতিটি নামের অর্থ, তাৎপর্য, ইতিহাস, বিক্ষাত ব্যক্তিত্ব, সোসাল মিডিয়ায় জনপ্রিয় ইত্যাদি বিষয় ধারাবাহিক ভাবে যুক্ত করা হবে। মনে রাখবের ‘একটি সুন্দর নাম আপনার সন্তানের সারা জিবনের পরিচয়!!!’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *